রোহিঙ্গা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ কাল ঢাকা যাচ্ছেন জাতিসঙ্ঘের স্পেশাল রেপোর্টিয়ার ইয়াংহি লি

0
94

 

অনলাইন ডেস্কঃ বার্মার মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসঙ্ঘের স্পেশাল রেপোর্টিয়ার ইয়াংহি লি তিনদিনের সফরে আগামীকাল সোমবার বাংলাদেশে যাচ্ছেন।

তিনি কক্সবাজার সফর করে রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের অবস্থা সরেজমিন পরিদর্শন করবেন এবং বার্মায় তাদের ওপর দমন-পীড়নের তথ্য সংগ্রহ করবেন।

ইয়াংহি লি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি ও কূটনৈতিকদের সাথে মতবিনিময় করবেন।

সফরের আগে জেনেভা থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে ইয়াংহি লি বলেন, ‘উত্তর আরাকানে বার্মার সামরিক বাহিনীর অভিযান বন্ধের ঘোষণাকে আমি স্বাগত জানাই।

তবে গত মাসে জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের একটি প্রতিনিধি দল কক্সবাজার ঘুরে এসে বার্মা থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরেছে, তা খুবই উদ্বেগজনক। ক্ষতিগ্রস্থ এই সম্প্রদায়ের সাথে কথা বললে বার্মার মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে আমি আরো ভালো ধারণা পাব।’

এর আগে জাতিসঙ্ঘের এই স্পেশাল রেপোর্টিয়ার গত ৯ থেকে ২১ জানুয়ারি বার্মার সফর করেন। সফরকালে তিনি আরাকান ও কোচিন রাজ্য পরিদর্শন যেতে চাইলে নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে বাধাগ্রস্থ হন যদিও আরাকান রাজ্যের কিছু অংশ পরিদর্শন করতে সক্ষম হন এবং বার্মার রাষ্ট্রীয় পরামর্শক ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সুচিসহ ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে আলোচনা করেন।

এরপর জেনেভা থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলেন, বার্মায় যা হচ্ছে তা এক কথায় প্রতিহিংসামূলক। সেখানে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠি পরিকল্পিত ও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে বৈষম্যের শিকার।

লি বলেন, বিগত জাতীয় নির্বাচন বার্মার মানুষের মধ্যে ব্যাপক আকাঙ্খার জন্ম দিয়েছিল। কিন্তু মাত্র এক বছরের মধ্যে সেই প্রত্যাশা ধীরে ধীরে মিলিয়ে যেতে শুরু করেছে। এটা খুবই দু:খজনক।

আরাকান রাজ্যে রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘পুড়ে যাওয়া বাড়ির কাঠামো আমি নিজ চোখে দেখেছি। সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, গ্রামবাসীরা নিজেদের বাড়িঘর নিজেরাই পুড়িয়ে দিয়েছে। এই যুক্তি আমার কাছে অবিশ্বাস্য ঠেকেছে।’

নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানকালে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের একটি ভিডিও ক্লিপ জাতিসঙ্ঘের এই বিশেষজ্ঞ দেখেছেন। তার মতে, এটা বিচ্ছিন্ন নয়, বরং অহরহ এমন ঘটনা ঘটছে।

লি বলেন, বার্মার জবাবদিহিতা ও ন্যায় বিচার অবশ্যই থাকতে হবে। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়- এ বিষয়টি জনগণকে নিশ্চিত করতে হবে।

বাংলাদেশ সফর শেষে ইয়াংহি লি একটি বিবৃতি দেবেন। এরপর আগামী ১৩ মার্চ জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার কাউন্সিলে বার্মার ওপর প্রতিবেদন উত্থাপন করবেন। এতে পরিস্থিতির ওপর তার মতামতের পাশাপাশি বার্মার সরকারের প্রতি সুপারিশও অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

এইদিকে সম্প্রতি বার্মা সরকারের তৈরি কমিশন রোহিঙ্গা বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে মিথ্যা কথা তথা নির্যাতনের সঠিক ব্যাখ্যা না দিতে বলা হচ্ছে এমনকি ভয় দেখিয়ে বলা হচ্ছে বলে স্থানীয় রোহিঙ্গারা জানান।

======= arakanlive.com ভিজিট করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। অনুগ্রহপূর্বক আপনার মূল্যবান মতামত ও পরামর্শ আমাদেরকে লিখে জানাবেন। ইমেইল: arakanlive1@gmail.com

LEAVE A REPLY